1. editor@mvoice24.com : Mahram Hossain : Mahram Hossain
  2. admin@mvoice24.com : admin :
ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২৭টি এলএমজি স্থাপন - MVOICE 24
বৃহস্পতিবার, ৩০ মে ২০২৪, ১২:১৯ পূর্বাহ্ন

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ২৭টি এলএমজি স্থাপন

ডেক্স নিউজ
  • আপডেট সময় : শুক্রবার, ৯ এপ্রিল, ২০২১
  • ২০১ বার পড়া হয়েছে

এমভয়েস ডেস্ক,ব্রাহ্মণবাড়িয়া: ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সব থানা, পুলিশ ফাঁড়ি ও তদন্ত কেন্দ্র ও ক্যাম্পে কঠোর নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করতে ২৭টি লাইট মেশিনগান পোস্ট (এলএমজি) স্থাপন করা হয়েছে।

শুক্রবার (৯ এপ্রিল) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা পুলিশের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়। বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা পুলিশের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) রইছ উদ্দিন।

এলএমজি চেকপোস্ট স্থাপন করা থানাগুলো হলো- ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর মডেল থানা, আশুগঞ্জ, সরাইল, নাসিরনগর, নবীনগর, বাঞ্ছারামপুর, কসবা, আখাউড়া, বিজয়নগর।

পুলিশ ফাঁড়ি ও তদন্তকেন্দ্রগুলো হলো- ১নং শহর পুলিশ ফাঁড়ি, ২নং শহর পুলিশ ফাঁড়ি, ইসলামপুর পুলিশ ফাঁড়ি, ধরখার পুলিশ ফাঁড়ি, চাতলপাড় তদন্ত কেন্দ্র, আউলিয়া বাজার তদন্ত কেন্দ্র।

ছয়টি পুলিশ ক্যাম্প সার কারখানা পুলিশ ক্যাম্প, পিডিবি পুলিশ ক্যাম্প, টোলপ্লাজা পুলিশ ক্যাম্প, শিবপুর পুলিশ ক্যাম্প, ছলিমগঞ্জ পুলিশ ক্যাম্প, চম্পনগর পুলিশ ক্যাম্প।

এছাড়া জেলা পুলিশ লাইন্সে চারটি ও পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে একটিসহ মোট ২৭টি এলএমজি চেকপোষ্ট স্থাপন করা হয়েছে। এসব নিরাপত্তা পোস্টে আধুনিক ও ভারি অস্ত্রসহ প্রশিক্ষিত পুলিশ সদস্যদের নিয়োজিত করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, গত ২৬, ২৭ ও ২৮ মার্চ হেফাজতে ইসলামের নেতাকর্মীদের সহিংস ও ধ্বংসাত্মক কর্মসূচির প্রেক্ষাপটে জেলার বিভিন্ন থানা, ফাঁড়িসহ পুলিশের অন্যান্য স্থাপনায় ব্যাপক নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করা হয়েছে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, প্রত্যেকটি থানা, ফাঁড়ি ও ক্যাম্পে ইতোমধ্যেই জনবল বৃদ্ধিসহ পর্যাপ্ত অস্ত্র ও গোলাবারুদ সরবরাহ করা হয়েছে। সাম্প্রতিক প্রেক্ষপটে কোনো দুষ্কৃতিকারী যেন পুলিশ স্থাপনায় হামলা বা সহিংস ঘটনা ঘটাতে না পারে সেজন্য ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা নিয়মিত মনিটরিংয়েল ব্যবস্থা করা হয়েছে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (অপরাধ ও প্রশাসন) রইছ উদ্দিন এমভয়েস টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘হেফাজতে ইসলাম যে তাণ্ডব ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় চালিয়েছে, তাতে পুলিশের বিভিন্ন স্থাপনায়ও রক্ষা পায়নি। এজন্য আমরা পুরো শহরের নিরাপত্তা নিশ্চিতের পাশাপাশি পুলিশের স্থাপনাগুলোতেও বিশেষ নিরাপত্তা ব্যবস্থা গ্রহণ করেছি। যেন পুলিশের স্থাপনাগুলো আক্রান্ত না হয়। কারণ পুলিশ আক্রান্ত হলে সাধারণ মানুষকে নিরাপত্তা দিতে পারবে না। পরবর্তী ঘোষণা না দেয়া পর্যন্ত এই নিরাপত্তা ব্যবস্থা বহাল থাকবে।’

এর আগে সিলেটের ১৭টি থানাসহ পুলিশ ফাঁড়ি ও পুলিশ তদন্ত কেন্দ্র এবং নারায়ণগঞ্জের সব থানা, ফাঁড়ি, তদন্তকেন্দ্র ও স্থাপনাগুলোতে ২০টি এলএমজি পোস্ট স্থাপনের তথ্য জানিয়েছে স্ব স্ব জেলা পুলিশ।

আআম/তাআম/এমএমএইচ/২

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরো ......
Design Customized By Our Team