1. editor@mvoice24.com : Mahram Hossain : Mahram Hossain
  2. admin@mvoice24.com : admin :
রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত- ৭, মধ্যরাতেও নিয়ন্ত্রণে আসেনি আগুন - MVOICE 24
বৃহস্পতিবার, ১৮ জুলাই ২০২৪, ০৮:৫৮ পূর্বাহ্ন

রোহিঙ্গা ক্যাম্পে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে নিহত- ৭, মধ্যরাতেও নিয়ন্ত্রণে আসেনি আগুন

ডেক্স নিউজ
  • আপডেট সময় : সোমবার, ২২ মার্চ, ২০২১
  • ২২০ বার পড়া হয়েছে

এমভয়েস ডেস্ক, কক্সবাজার: কক্সবাজারের উখিয়ার বালুখালীতে রোহিঙ্গাদের পাঁচটি ক্যাম্পে ভয়াবহ অগ্নিকাণ্ডে শিশুসহ ৭ জন নারী পুরুষ নিহত হয়েছেন। অন্তত ১০ হাজার রোহিঙ্গাদের ঘর ভস্মিভূত হয়েছে। একই সাথে স্থানীয়দের ৩শ মত ঘর পুড়ে গেছে।

সোমবার বিকেল ৩টায় উখিয়ার বালুখালী ৮-ডব্লিউ রোহিঙ্গা ক্যাম্পে আগুন লাগে। ক্যাম্পটির লাগোয়া ৮-এইচ, ৯, ১০ ও ১১ নম্বর ক্যাম্পেও সে আগুন ছড়িয়ে পড়ে।

ফায়ার সার্ভিসের সাতটি ইউনিট আগুন নিয়ন্ত্রণে কাজ করছে। পাশাপাশি সেনাবাহিনী, পুলিশসহ বিভিন্ন বেসরকারি সংস্থার স্বেচ্ছাসেবী কর্মীরা এতে যোগ দিয়েছে। ক্যাম্পের ঘরগুলো একটার সঙ্গে আরেকটা লাগোয়া আর বাতাসের গতিবেগ থাকায় আগুন নিয়ন্ত্রণে আনতে বেগ পেতে হচ্ছে।

রাত ২টায় এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত আগুন পুরোপুরি নিয়ন্ত্রণে আসেনি। অগ্নিকাণ্ডে কমপক্ষে ১ হাজার মানুষ আহত হলেও ১০১জনকে উন্নত চিকিৎসার জন্য কক্সবাজারের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে রাতে উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) নিজাম উদ্দীন আহমদ জানিয়েছেন, অগ্নিকাণ্ডে প্রাথমিক হিসাব মতে ৯ হাজারেরও বেশি রোহিঙ্গা পরিবারের ঘর পুড়ে গেছে। তিনি জানান, ক্যাম্পের পার্শ্ববর্তী গ্রামেরও শতাধিক ঘরবাড়ি পুড়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত গ্রামের লোকজন বালুখালী কাসেমিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে আশ্রয় নিয়েছে।

স্থানীয়রা জানিয়েছেন, আগুনে কুতুপালং বলিবাজার এলাকার স্থানীয় বাজারের শতাধিক দোকান পুড়ে গেছে। ক্ষতিগ্রস্ত এসব ব্যবসা প্রতিষ্ঠান স্থানীয়দের। পুড়ে গেছে ৮ ও ৯ নম্বর ক্যাম্পে আন্তর্জাতিক অভিবাসন সংস্থা আইওএম এবং এমএসএফ পরিচালিত তিনটি ফিল্ড হাসপাতাল। দগ্ধ লোকজনকে নিকটবর্তী উখিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেপসহ বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিজাম উদ্দিন আহমেদ জানান, অগ্নিকাণ্ডের পর রোহিঙ্গারা ঘরবাড়ি ছেড়ে সড়কের উভয় পাশে অবস্থান নেয়। দীর্ঘ ৪ ঘণ্টাব্যাপী কক্সবাজার-টেকনাফ সড়কে যান চলাচল বন্ধ ছিল। সন্ধ্যা ৭টা থেকে যান চলাচল ফের শুরু হয়। পুরো ক্যাম্প এলাকায় নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

সোমবার বিকেল সাড়ে ৫টার দিকে জেলা প্রশাসক মামুনুর রশীদ, পুলিশ সুপার হাসানুজ্জামান, ত্রাণ ও শরণার্থী প্রত্যাবাসন কমিশনার শাহ রেজোয়ান হায়াত ঘটনাস্থলে পৌঁছেন। আগুন নিয়ন্ত্রণে সংশ্নিষ্টদের কাজ তদারকি করেন তারা।

আআম/তাআম/৩

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরো ......
Design Customized By Our Team