1. editor@mvoice24.com : Mahram Hossain : Mahram Hossain
  2. admin@mvoice24.com : admin :
গাছে গাছে শোভা ছড়াচ্ছে আমের মুকুল - MVOICE 24
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৫:২৯ পূর্বাহ্ন

গাছে গাছে শোভা ছড়াচ্ছে আমের মুকুল

ডেক্স নিউজ
  • আপডেট সময় : রবিবার, ৭ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৩৪৫ বার পড়া হয়েছে

।শেখ মুরশেদুল আলম।

মাঘের শেষ হতে আরো কযেক দিন বাকী। ফাল্গুনের শুরুটায় গাছে গাছে দেখা যায় নানান ফুলের সমাহার। ফাগুনের ছোঁয়ায় পলাশ-শিমুলের বনে  আগুন রাঙা ফুলের মেলা। শীতের জড়তা কাটিয়ে কোকিলের সেই সুমধুর কু-হু ডাকে মাতাল করতে আবারও ফিরে আসছে, মাতাল করা ঋতুরাজ বসন্ত।

তবে সুখের ঘ্রাণ বইতে শুরু করেছে। গাছে গাছে ফুটছে আমের মুকুল। চারদিকে ছড়িয়ে পড়ছে এই মুকুলের পাগল করা ঘ্রাণ। এ যেন হলুদ আর সবুজের মহামিলন। মুকুলে ছেয়ে আছে গাছের প্রতিটি ডালপালা। চারদিকে ছড়াচ্ছে সেই মুকুলের সুবাসিত পাগল করা ঘ্রাণ।
ফুলের সমারোহে প্রকৃতি যেমন সেজেছে বর্ণিল সাজে, তেমনি নতুন সাজে যেন সেজেছে আম গাছগুলো। আমের মুকুলে ভরপুর আর ঘ্রাণে জানান দিচ্ছে বসন্তের বার্তা।অপরূপ বাংলার গাছে গাছে আমের মুকুলের এ চিত্র এমন কোনও বাঙালি চিত্ত নেই, যাকে দোলায় না।
এদিকে মৌসুমের শুরুতে আবহাওয়া অনুকূলে থাকায় মুকুলে ভরে গেছে বাগানসহ ব্যক্তি উদ্যোগে লাগানো আম গাছগুলোতে। তবে বড় আকারের চেয়ে ছোট ও মাঝারি আকারের গাছে বেশি মুকুল ফুটেছে। সেই মুকুলের মৌ মৌ গন্ধে বাগান মালিকদের চোখে ভাসছে স্বপ্ন। আম্রুপালি, গোপালভোগ, ল্যাংড়া, ফজলি, ক্ষিরসাপা অন্যতম। ইতিমধ্যে এসব গাছে মুকুল আসা শুরু হয়েছে। গাছের পুরো মুকুল ফুটতে আরও কয়েক সপ্তাহ লাগবে বলে জানান বাগান মালিকরা।
বাগান মালিক আবদুল কালাম ও রফিক জানান, প্রায় দুই সপ্তাহ আগে থেকে আম গাছে মুকুল আসা শুরু হয়েছে। বেশিরভাগ গাছ মুকুলে ছেয়ে গেছে। কিছু গাছে গাছে মুকুল বের হচ্ছে।
তারা জানান, মুকুল আসার পর থেকেই তারা গাছের প্রাথমিক পরিচর্যা শুরু করেছেন। মুকুল রোগ বালাইয়ের আক্রমন থেকে রক্ষা করতে স্থানীয় কৃষি বিভাগের পরামর্শ অনুযায়ী প্রয়োজনীয় ওষুধ স্প্রে করছেন তারা।
বাগান মালিকরা আরও জানান, বর্তমানে আবহাওয়া অনুকূলে রয়েছে। এ অবস্থা থাকলে এবার আমের বাম্পার ফলন বলে তারা আশা প্রকাশ করেন।তারা জানান, ক্ষতিকারক পোকার আক্রমণ কম থাকায় এবার কাঙ্ক্ষিত ফলনের আশা করছেন।
হাটাজারী উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শেখ আব্দুল্লা ওয়াহেদ  জানান, হাটাজারী উপজেলার বিরাজমান আবহাওয়া ও মাটি আম চাষের জন্য উপযোগী। মাঠ পর্যায়ের বাগান ও বসতবাড়ীর চারপাশের আম গাছে মুকুল থেকে শুরু করে শেষ পর্যন্ত আম যাতে কোন কারণে বিনষ্ট না হয় সে জন্য সার্বক্ষণিক সতর্ক দৃষ্টি রয়েছে।কৃষকদের বহুমূখী পরামর্শ প্রদান করা হচ্ছে। বড় ধরনের প্রাকৃতিক দূর্যোগ না হলে এবং আবহাওয়া অনুকুলে থাকলে গত বছরের তুলনায় এ বছর আমের উৎপাদন অনেক বেশি হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

আআম/এমএমএইচ/৮

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরো ......
Design Customized By Our Team