1. editor@mvoice24.com : Mahram Hossain : Mahram Hossain
  2. admin@mvoice24.com : admin :
স্বাধীনতা যুদ্ধে নৌ কমান্ডো আবু মুসা চৌধুরীর বীরত্ব কথন- টার্গেট অ্যাভলুজ - MVOICE 24
মঙ্গলবার, ২৭ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ০৬:০৮ পূর্বাহ্ন

স্বাধীনতা যুদ্ধে নৌ কমান্ডো আবু মুসা চৌধুরীর বীরত্ব কথন- টার্গেট অ্যাভলুজ

ডেক্স নিউজ
  • আপডেট সময় : বুধবার, ৬ জানুয়ারী, ২০২১
  • ২৯৯ বার পড়া হয়েছে

স্বাধীনতা যুদ্ধে নৌ কমান্ডো আবু মুসা চৌধুরীর বীরত্ব কথন

‘টার্গেট অ্যাভলুজ’

১৯৭১ সালের ২ অক্টোবর চট্টগ্রাম বন্দরে গ্রিসের পতাকাবাহী তেলভর্তি জাহাজ এমটি অ্যাভলুজ ধ্বংসের পর পাক হানাদার সরকার আন্তর্জাতিকভাবে ব্যাপক জবাবদিহিতার মুখে পড়ে। বহির্বিশ্বে প্রচার হয়, পাকবাহিনী বাঙালিদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ চালিয়ে যাওয়ার মানসিক শক্তি হারিয়ে ফেলেছে।
অ্যাভলুজের মালিকপক্ষ মোটা অংকের ক্ষতিপূরণ চেয়ে আন্তর্জাতিক আদালতে মামলা করে। তখন পাক সরকারের প্রতিনিধি মাহমুদ আলী এ বিষয়ে জাতিসংঘের কাছে ব্যাখ্যা প্রদানে বাধ্য হন। জাতিসংঘে তিনি বলেছিলেন, এ জাহাজ ধ্বংসের দায়দায়িত্ব পাকিস্তান সরকারের নয়, এটি ধ্বংসের জন্য দায়ী তথাকথিত মুক্তিবাহিনী।
এরপর ৮ নভেম্বর সামরিক জান্তা ইয়াহিয়া খান জাতির উদ্দেশে দেওয়া ভাষণেও নৌ কমান্ডোদের বীরত্বে হতাশ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেন। তিনি বলেছিলেন, ভয়াবহ দুর্ভিক্ষের জন্য আপনারা প্রস্তুত হোন। তথাকথিত মুক্তিবাহিনী বিদেশি জাহাজ ধ্বংস করায় কোনো বিদেশি জাহাজ খাদ্য নিয়ে পাকিস্তানে আসতে চাইছে না।
অ্যাভলুজ ধ্বংসের খবরটি আন্তর্জাতিক সংবাদমাধ্যম বিবিসি, ভয়েস অব আমেরিকাসহ সারা বিশ্বের মিডিয়া ফলাও করে প্রচার করে। অ্যাভলুজ ধ্বংসের পর বন্দরের মূল চ্যানেল নাব্যতা হারায় এবং চট্টগ্রাম বন্দরের সঙ্গে বহির্বিশ্বের নৌ যোগাযোগ সম্পূর্ণ বিচ্ছিন্ন হয়ে যায়। আন্তর্জাতিক অঙ্গনে মুক্তিযুদ্ধ এবং মুক্তিযোদ্ধাদের ভাবমূর্তি ছড়িয়ে পড়ে।
মুক্তিযুদ্ধে বিশ্ব কাঁপানো এই অভিযানের নায়ক হচ্ছেন নৌ কমান্ডো আবু মুসা চৌধুরী। জাহাজটি ধ্বংস করা ছিল এই তরুণের জন্য বড় চ্যালেঞ্জ। বলা যায়, ছোট মানুষের বড় কাজ। অ্যাভলুজ ধ্বংসের পর রণাঙ্গণজুড়ে আলোচিত হন তিনি। এই অপারেশনের সময় মাইনের শব্দে সৃষ্ট মাথার ক্ষত এখনো বয়ে বেড়াচ্ছেন তিনি। যুক্তরাষ্ট্রের ব্যয়বহুল চিকিৎসা বাঁচিয়ে রেখেছে একাত্তরের এই বীরকে।
এমটি অ্যাভলুজ ধ্বংস করা কী কারণে প্রাসঙ্গিক ছিল? এ বিষয়ে আবু মুসা চৌধুরী বলেন, তেলভর্তি এমটি অ্যাভলুজ ধ্বংসের সময় পাকিস্তানিদের হাতে অ্যারেস্ট ছিল। আগস্টে নৌ কমান্ডোদের অপর সফল অপারেশন জ্যাকপট সম্পন্ন হওয়ার পর সম্ভাব্য আক্রমণ এড়াতে জাহাজটি লোকাল কান্ট্রি অর্থ্যাৎ পাকিস্তানের পতাকা নামিয়ে রাখে। পতাকা নামানোর অপরাধে পাকিস্তানিরা জাহাজটি অ্যারেস্ট করে অর্থদ-ে দ-িত করে। আমাদের লক্ষ্য ছিল, পাকিস্তানিদের হাতে আটক জাহাজটি তাদের হেফাজতে থাকা অবস্থায় যেকোনো মূল্যে ধ্বংস করা; যাতে আন্তর্জাতিকভাবে তাদের ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হয়। এর মাধ্যমে বিশ্ব আমাদের বীরত্বের কথাও জানবে।
তিনি বলেন, ওই দিন অ্যাভলুজ ছাড়াও এমভি মানা নামে আমেরিকান একটি জাহাজ ধ্বংসের পরিকল্পনা হয়। সিদ্ধান্ত হয় লিমপেট মাইন বিস্ফোরণ ঘটিয়ে ধ্বংস করার। অ্যাভলুজের দায়িত্ব পড়ে আমার ওপর। সহযোদ্ধা মনোজ কুমার দত্ত ধ্বংস করবে এমভি মানা। ২ অক্টোবর রাত ১২টায় পতেঙ্গার গুপ্তাখালের দুই মাইল উজান থেকে শুরু হয় আমাদের দুঃসাহসিক অভিযান। খাল লাগোয়া এক বাড়ির রান্নাঘর থেকে খালি গায়ে পানিতে নামার প্রস্তুতি নিই। কোমরে বেঁধে নিই দুটি লিমপেট মাইন। পেটের সাথে গামছা বেঁধে পেচিয়ে নিই আরো দুটি মাইন। আরেকটি গামছায় পলিথিনের পুটলিতে লুঙ্গি, জামা, ৩০০ টাকা ও পিন্স (সাঁতারের সময় পায়ে পরতে হয়)। এসব নিয়ে নেমে পড়ি খালে। তখন কর্ণফুলীর শাখা খালটিতে সবেমাত্র জোয়ারের পানি ঢুকছিল। এ অবস্থায় পায়ে পিন্স থাকায় হাঁটতে পারছিলাম না। তার ওপর খালের ঝোঁপে কাঁটার আঘাত। শরীরের বিভিন্ন স্থান থেকে রক্ত ঝরছিল। সেখানে লবণাক্ত পানি লাগায় তীব্র ব্যথা হচ্ছিল। তবুও এগোতে থাকলাম। রাজাকার ও পাক আর্মির শ্যোন দৃষ্টি ও বিভিন্ন বাধা অতিক্রম করে রাত ২টার পর অবশেষে কর্ণফুলীর যেখানে অ্যাভলুজ নোঙর করা ছিল, সেখানে পৌঁছি। জাহাজের ওয়াচম্যান আমাকে দেখে চিৎকার শুরু করে। সতর্ক হয় পাহারায় থাকা পাক সেনারা। রাস্তার পাশ দিয়ে ছুটছিল তারা। সঙ্গে চালাচ্ছিল বৃষ্টির মতো গুলি। এর আগেই আমি ডুব দিয়ে বিপরীত দিকে চলে যাই। জাহাজটির ইঞ্জিন বরাবর অংশে ছুরি দিয়ে শেওলা পরিষ্কার করে দু-তিন মিনিটে একটি লিমপেট মাইন লাগাই। এর পরপরই আরেকটি লাগাই। এসব মাইন ৪৫ মিনিট পর বিস্ফোরণের নিয়ম থাকলেও আমি নির্ধারিত দূরত্ব অতিক্রম করার আগে ১০ মিনিটের মাথায় প্রথম মাইনের বিস্ফোরণ ঘটে। বিস্ফোরণের বিকট শব্দে কেঁপে উঠি। কিন্তু লক্ষ্যচ্যুত হয়নি আমার মাইন। প্রথম মাইন বিস্ফোরণের সাথে সাথে ১৭ হাজার মেট্রিক টন ওজনের জাহাজটি শূন্যে ওঠানামা করে। এরই মধ্যে প্রায় অজ্ঞান হয়ে পড়ি। বিকট শব্দে নাক ও কান দিয়ে রক্ত ঝরছিল। আধ ঘণ্টা পর কোনো রকমে কর্ণফুলীর দক্ষিণপাড়ের কাছাকাছি পৌঁছতেই শুনতে পাই দ্বিতীয় মাইন বিস্ফোরণের শব্দ। এতে জাহাজটি ধ্বংসস্তূপে পরিণত হয়।
নৌ কমান্ডো আবু মুসা চৌধুরী মুক্তিযুদ্ধে এটিসহ ছয়টি সফল নৌ অপারেশন করেন। অ্যাভলুজ তাঁর তৃতীয় অপারেশন। প্রথম অপারেশন ১৪ আগস্টের অপারেশন জ্যাকপট, দ্বিতীয় অপারেশন আউটার অ্যাঙ্কর। অ্যাভলুজের পর বুড়িগঙ্গা-ধলেশ্বরী মোহনায় এমভি তুরাগ ধ্বংস, নারায়ণগঞ্জ বিশ্ব গোডাউনের সামনে জাতিসংঘের রসদবাহী জাহাজ মিনি লেডি ও মিনি লায়ন ধ্বংস এবং কাঁচপুর ফেরি ও পন্টুন উড়িয়ে দেওয়ার অভিযানে ছিলেন অন্যতম বীর। এসব নৌ অপারেশন বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের ইতিহাসে মাইলফলক হিসেবে চিহ্নিত হয়ে আছে।
নৌ কমান্ডো হিসেবে মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণের সময় আবু মুসা ছিলেন দশম শ্রেণীর ছাত্র। তখন তাঁর বয়স ছিল ১৬ বছর। চট্টগ্রামের ফটিকছড়ি থানার হাইদচকিয়ার ব্রিটিশবিরোধী আন্দোলনের কর্মী মরহুম সুলতান আহমদ চৌধুরী ও নফিজা খাতুনের কনিষ্ঠ পুত্র তিনি।
অ্যাভলুজ ধ্বংসের সময় তাঁর মাথায় সৃষ্ট ক্ষত যুদ্ধের দুই দশক পর কঠিন ব্যাধিতে রূপ নেয়। দেশের চিকিৎসায় সেরে না ওঠায় ১৯৯৫ সাল থেকে ২০০২ সাল পর্যন্ত ৮ বছর যুক্তরাষ্ট্রে থেকে চিকিৎসা নেন। মাঝে দেশে ফেরার পর আবার রোগ দেখা দিলে ২০০৫ সালে চিকিৎসার জন্য ফিরে যান আমেরিকায়। বেঁচে থাকলেও একাত্তরের ক্ষত এখনো বয়ে বেড়াচ্ছেন। ব্যয়বহুল চিকিৎসার খরচ যোগাতে জীবনের ঝুঁকি সত্ত্বেও বিদেশে চাকরি করতে হচ্ছে তাঁকে।
মুক্তিযুদ্ধে বীরত্বপূর্ণ অবদান রেখে খেতাব না পেলেও আবু মুসা চৌধুরীর ক্ষোভ নেই। লক্ষ প্রাণের বিনিময়ে অর্জিত স্বাধীনতাই তাঁর জন্য পরম পাওয়া। এখন তাঁর চাওয়া, যে লক্ষ্যে জীবনবাজি রেখে যুদ্ধ করে দেশ স্বাধীন করেছেন, সেই স্বপ্নের বাস্তবায়ন। প্রজন্মের জন্য সুখী, সমৃদ্ধ ও প্রগতিশীল বাংলাদেশ। ২০ মার্চ ২০০৫

চলবে…

সংগৃহীত

শেয়ার করুন

এই সম্পর্কিত আরো ......
Design Customized By Our Team